Categories
জীবনশৈলী

রোগ প্রতিরোধক্ষমতা ঠিক রাখতে

পরিমিত পরিমাণ খাবার খেতে হবে

রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য অতিরিক্ত খাবার গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকুন। একটি সুষম খাবার তালিকা তৈরি করুন। ভিটামিন, মিনারেল, কার্বোহাইড্রেট—সবকিছুর মধ্যে যেন একটা ভারসাম্য থাকে।

ভিটামিন ও প্রোটিনজাতীয় খাবার গ্রহণ করুন
প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় ভিটামিন ও প্রোটিনজাতীয় খাবার রাখুন। কিন্তু তা যেন পরিমাণে বেশি না হয়, সেদিকে নজর রাখুন। অতিরিক্ত ভিটামিন ও প্রোটিন খেলেই রোগ প্রতিরোধক্ষমতা হুট করে বেড়ে যাবে না; বরং হিতে বিপরীত ঘটবে। হঠাৎ শরীরে অতিরিক্ত ভিটামিন ও মিনারেল বৃদ্ধির ফলে অন্যান্য সমস্যার সৃষ্টি
হতে পারে।

দুগ্ধজাত খাবার খেতে হবে
দুগ্ধজাত খাবারগুলো বিজ্ঞানের ভাষায় প্রোবায়োটিকস হিসেবে পরিচিত। যেমন দই, ঘোল, ছানা ইত্যাদি। মানুষের পাকস্থলীতে যে আবরণ আছে, তার ভেতর বেশ কিছু উপকারী জীবাণু কার্যকরী হয়। পাকস্থলীতে উপকারী ব্যাকটেরিয়ার সংখ্যা কমলে সেখানে ক্যানসার বাসা বাঁধতে পারে। দুগ্ধজাত খাবারগুলো পাকস্থলীতে উপকারী জীবাণুকে বাঁচিয়ে রাখে। ভিটামিন ডির জন্য দিনের কিছুটা সময় শরীরে রোদ লাগাতে হবে। এটা খাদ্যাভ্যাস ও জীবনাচরণের সঙ্গে সম্পৃক্ত। যার শরীরের গঠন ভালো এবং সেখানে কোনো ঘাটতি থাকবে না, তার রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বেশি হবে। যেমন শিশুর জন্মের পর থেকে মায়ের বুকের দুধ খাওয়ালে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।

নিয়মিত ডিম খেতে হবে
নিয়মিত ডিম খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। সেদ্ধ, পোচ কিংবা ভাজা যেকোনোভাবেই ডিম খেতে পারেন। ডিম শরীরে শক্তি সঞ্চার করে এবং রোগের সঙ্গে লড়ার শক্তি জোগায়।

অতিরিক্ত কার্বোহাইড্রেট গ্রহণ থেকে বিরত থাকুন
অতিরিক্ত কার্বোহাইড্রেট গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকুন। কেননা বেশি পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট গ্রহণের ফলে সেটি শরীরের ভেতরে ঢোকার পর ফ্যাট বা চর্বিতে রূপান্তর ঘটে। তাই একজন সুস্থ মানুষের প্রতিদিন ৬০ শতাংশ কার্বোহাইড্রেট গ্রহণ করা উচিত এবং এর সঙ্গে ৩০ শতাংশ প্রোটিন ও ৫ শতাংশ চর্বিজাতীয় খাবার খাওয়া উচিত।

অতিরিক্ত চা-কফি গ্রহণ নয়
অতিমাত্রায় চা-কফি পান করা শরীরের জন্য ভালো নয়। চা-কফিতে এমন অনেক উপাদান থাকে, যার কোনোটি শরীরের জন্য ভালো ও কোনোটি খারাপ।

ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে
অতিরিক্ত ওজন নানা রোগের উৎস। আমেরিকান একটি পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, অতিরিক্ত ওজনের ফলেই বেশির ভাগ কোভিড আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া অতিরিক্ত ওজন উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিসসহ আরও জটিল রোগের কারণ। তাই সব সময় ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন।

প্রতিদিন হালকা ব্যায়াম করতে হবে
প্রতিদিন সকালে ও বিকেলে হালকা ব্যায়াম করুন। ব্যায়াম করার আগে চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করে নিন। আমরা না জেনে অনেক সময় ভুল ব্যায়াম করি, অর্থাৎ আমাদের শরীর নিতে পারে না এমন অনেক ব্যায়াম করার ফলে উপকারের চেয়ে অপকারই বেশি হয়। তাই আপনার শরীর নিতে পারে এমন ব্যায়াম করুন। নিজের সক্ষমতার চেয়ে অধিক ব্যায়াম করা উল্টো শরীরের জন্য ক্ষতিকর।

শারীরিক পরিশ্রম করুন
রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধির সঙ্গে শারীরিক পরিশ্রমের সম্পর্ক আছে। একজন মানুষ যখন শারীরিক পরিশ্রম করে, তখন শরীরের প্রতিটি অঙ্গপ্রত্যঙ্গ কাজ করে।
শরীরের মাংসপেশি এবং হৃদ্‌যন্ত্র অনেক কার্যকরী হয়। একই সঙ্গে শরীরের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পায়। ফলে শরীরের দূরতম প্রান্ত পর্যন্ত অক্সিজেন পৌঁছায়। তখন শরীরের কোষগুলোয় শক্তি উৎপাদন শুরু হয়। এমন ধরনের পরিশ্রম করতে হবে, যাতে শরীর থেকে ঘাম ঝরে।

লেখক: অধ্যাপক, পুষ্টি ও খাদ্যবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

আরও পড়ুন
সহজে ঘরোয়া ফেসপ্যাক তৈরি করুন

উজ্জ্বল ত্বকের জন্য ঘরোয়া ফেসপ্যাকের বিকল্প নেই। প্রাকৃতিক উপাদানের তৈরি এসব ফেসপ্যাকে নেই কোনও ক্ষতিকারক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। পাশাপাশি ত্বক সুস্থ রাখতে ভিটামিন ও মিনারেল সমৃদ্ধ খাবার এবং প্রচুর পানি পানও জরুরি।

১ টেবিল চামচ বেসনের সঙ্গে আধা চা চামচ হলুদের গুঁড়া ও প্রয়োজন মতো গোলাপজল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। মুখ, গলা ও ঘাড়ে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
চন্দনের গুঁড়ার সঙ্গে মধু মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। ত্বকে লাগিয়ে রাখুন ২০ মিনিট। ধুয়ে ফেলুন কুসুম গরম পানি দিয়ে।

১ টেবিল চামচ করে চালের আটা, চন্দন গুঁড়া ও বেসন নিন। আধা চামচ গুঁড়া দুধ ও প্রয়োজনীয় পরিমাণ গোলাপজল মিশিয়ে মসৃণ পেস্ট বানিয়ে নিন। মিশ্রণটি ৫ মিনিট ত্বকে ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলুন।
সমপরিমাণ লেবুর রস ও মধু মিশিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করুন। কিছুক্ষণ ত্বকে লাগিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন।

১ টেবিল চামচ বেসন, আধা চা চামচ হলুদ গুঁড়া, ১ টেবিল চামচ তরল দুধ ও আধা চা চামচ লেবুর রস মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিন। মিশ্রণটি পরিষ্কার ত্বকে লাগান। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন।

১ টেবিল চামচ অ্যালোভেরার জেল, ১ চা চামচ লেবুর রস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *